নতুন করোনা ভাইরাস ভ্যারিয়েন্টের সংক্রমণ ঘটছে ভারতেঃ চিন্তায় চিকিৎসক ও বিজ্ঞানীরা

Reading Time: 2 minutes

শুভময় ব্যানার্জী, পিএইচডি, নিউক্র্যাড হেলথ এর প্রতিবেদন, মার্চ ২৮, ২০২১

করোনা ভাইরাসের মিউটেশান যুক্ত স্ট্রেন ব্রিটেন, সাউথ আফ্রিকা, এবং ব্রাজিলে সংক্রমণ ঘটানোর পরে এবার ভারতে প্রবেশ করেছে বলে বিজ্ঞানীদের আশঙ্কা। এখনো পর্যন্ত প্রাথমিক অনুসন্ধানে মোট দুটি ভ্যারিয়েন্টের সন্ধান মিলেছে, যারা হোল- N440K এবং E484K। এই দুটি ভ্যারিয়েন্ট সংক্রমণ ঘটানোর ক্ষেত্রে অনেক বেশী প্রভাবশালী বলে বিজ্ঞানীরা মনে করেন।    

ভারতে নতুন করোনা ভাইরাস ভ্যারিয়েন্টঃ প্রাথমিক অনুসন্ধান পর্ব

ভারতীয় গবেষকরা এখনো পর্যন্ত অনুসন্ধান চালিয়ে সারা ভারত থেকে মোট ২৪০টি করোনা ভাইরাসের নতুন স্ট্রেন খুঁজে পেয়েছেন। এখন অনেকের মনে প্রশ্ন জাগতে পারে, ‘স্ত্রেন’ ও ‘ভ্যারিয়েন্ট’ শব্দদুটি কি একই অর্থে ব্যাবহার করা হয়? না, স্ত্রেন ও ভ্যারিয়েন্ট এক নয়। কোন ভাইরাসের জিনোমে মিউটেশান দেখা দিলে তৈরি হয় নতুন ভ্যারিয়েন্ট। কিন্তু, বাস্তবক্ষেত্রে এননতুন ভ্যারিয়েন্টের সাথে আদি ভাইরাসের কোন ব্যাবহারগত পার্থক্য থাকে না। তবে, যে মুহুর্তে সামান্য পার্থক্য দেখা দেয় সেই সময় থেকে ভ্যারিয়েন্টকে বলা হয় স্ত্রেন। বিজ্ঞানীদের অনুমান, সামগ্রিকভাবে কিছু দিন আগে থেকেই সারা ভারতে করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়তে শুরু করেছে এবং তার মূলে থাকতে পারে এই ভ্যারিয়েন্টগুলির হাত। সংবাদসূত্রের খবর অনুযায়ী, মহারাষ্ট্র ও কেরালায় প্রায় ৭৫% সক্রিয় কোভিড-১৯ সংক্রমণ ঘটেছে। এছাড়া, পাঞ্জাব, ছত্তিসগড় ও মধ্যপ্রদেশেও করোনা রোগীর সংখ্যা বাড়ছে বলে খবর পাওয়া গেছে। গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, N440K এবং E484K দুটি ভ্যারিয়েন্টই  মহারাষ্ট্র, কেরালা ও তেলেঙ্গানায় পাওয়া গেছে এবং দক্ষিন ভারতে N440K ভ্যারিয়েন্ট কোভিড-১৯ সংক্রমণে বেশী কার্যকর বলে মনে করা হচ্ছে। 

নতুন করোনা ভাইরাস ভ্যারিয়েন্টগুলিকে নিয়ে দুশ্চিন্তার কারন কি?

অল ইন্ডিয়া ইন্সিটিউট অফ মেডিক্যাল সায়েন্স (AIIMS-Delhi) এর অধিকর্তা ডঃ রনদীপ গুলেরিয়া জানিয়াছেন, মহারাষ্ট্রে পাওয়া নতুন কোভিড-১৯ স্ত্রেনটি পুরনো ভাইরাসের থেকে অনেক বেশী সংক্রমণ ছড়ানোর ক্ষমতা রাখে এবং এটি কোন মানুষের শরীরে করোনা প্রতিরোধী অ্যান্টিবডি থাকলেও তাকে পুনঃ সংক্রমিত করতে পারে।  

ভ্যাকসিন কি এই নতুন করোনা ভাইরাস ভ্যারিয়েন্টগুলির বিরুদ্ধে কার্যকরী হবে? 

বর্তমানে, ভারতে যে ভ্যাকসিনেশান প্রোগ্রাম চলছে, তাতে অক্সফোর্ড-অ্যাস্ট্রাজেনেকার ‘কোভিশিল্ড’ ও ভারত বায়োটেকের ‘কোভ্যাকসিন’ তাদের কার্যকারিতা সম্পূর্ণ দেখাতে পারেনি। ডঃ গুলেরিয়ার মতে, এই ভ্যাকসিনগুলি করোনার নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তুলতে কম কার্যকরী হবে বলে মনে হয়। তবে, ইতিমধ্যেই যারা ভ্যাকসিন নিয়েছেন তারা যদি নতুন ভ্যারিয়েন্টের দ্বারা সংক্রমিত হন, তাদের ক্ষেত্রে রোগের প্রকোপ কিছুটা কম হতে পারে। 

নিউক্র্যাড হেলথ নিয়ে আসছে নিউক্র্যাড হেলথ হাব – বাংলায় এক নতুন স্টার্ট আপ ,
এক বাঙালি বিজ্ঞানীর হাত ধরে। নিউক্র্যাড হেলথ হাব এর এন্ট্রেপ্রেনিউরশিপ প্রোগ্রাম এ কোনো পুঁজি না লাগিয়ে অংশ গ্রহণ করতে অথবা জানতে হোয়াট’স আপ করুন +917001105893

করোনা ভাইরাস নতুন ভ্যারিয়েন্টের বিরুদ্ধে সতর্কতামূলক ব্যাবস্থাঃ 

১) বিখ্যাত এন্ডোক্রিনোলজিস্ট ডঃ শশাঙ্ক যোশী জানিয়েছেন, দুটি করে মুখে মাস্ক ব্যাবহার করা উচিত আর সংক্রমণ ছড়ালে বিশেষ ‘মাইক্রোকন্টেন্টমেন্ট জোনের’ প্রয়োজন হতে পারে।

২) যত দ্রুত সম্ভব এই ভাইরাসের ভ্যারিয়েন্টগুলির জিনোম সিকোয়েন্সিং এর ব্যাবস্থা করা উচিত। তবেই জানা যাবে নতুন মিউটেশান, তার প্রকার, জেনেটিক শিফট, ভাইরাসের সংক্রমণ প্রবনতা ইত্যাদি। NITI  স্বাস্থ্য আয়োগের সদস্য ডঃ ভি.কে. পল জানিয়েছেন, করোনা ভাইরাসের ধীর গতির মিউটেশানের যে কথা আমরা জানি, তা হয়তো সম্পূর্ণ ঠিক নয়, আসলে পর্যাপ্ত পরিমানে জিনোম সিকোয়েন্সিং না করার ফলে আমাদের কাছে সম্পূর্ণ ছবি  এসে পৌঁছয় নি। হায়েদ্রাবাদের দ্য সেন্টার ফর সেলুলার অ্যান্ড মলিকিউলার বায়োলজির (CCMB) অধিকর্তা ডঃ রাকেশ মিশ্র জানিয়েছেন, সঠিক ভাবে করোনা ভাইরাস জিনোম সিকোয়েন্সিং করলে তবেই নতুন ভ্যারিয়েন্টগুলির সম্পর্কে জানা যাবে। 

৩) প্রয়োজনে সংরক্ষণ, নাইট কারফিউ, লক ডাউন ইত্যাদির মাধ্যমে সংক্রমণ ঠেকাতে হবে। ইতিমধ্যেই, পাঞ্জাব, মধ্যপ্রদেশ, মহারাষ্ট্র সংলগ্ন বালাঘাটে নাইট কারফিউ কার্যকরী হচ্ছে। 

আমাদের সব সময়ে মনে রাখা উচিত, করোনা সংক্রমণ এখনো দূর হয় নি। সুতরাং, সাম্প্রতিক করোনা পরিস্থিতিকে মোটেও হালকা ভাবে নেওয়া ঠিক নয়। রাস্তা, যানবাহন, কর্মক্ষেত্রে নির্দিষ্ট শারীরিক দূরত্ব বজায় রাখা, মাস্কের ব্যাবহার, নিয়মিত স্যানিটাইজারের ব্যাবহার চালিয়ে যেতে হবে যাতে করোনা ভাইরাসের ভ্যারিয়েন্টগুলির সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়ে দ্বিতীয় পর্যায়ের কোভিড-১৯ অতিমারী তৈরি না হতে পারে। 

YouTube চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

YouTube চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন
YouTube চ্যানেল সাবস্ক্রাইব করুন

তথ্যসূত্রঃ

  1. https://www.nature.com/articles/s41598-020-70812-6
  2. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/search/research-news/12079/
  3. https://www.ncbi.nlm.nih.gov/search/research-news/12261/
  4. https://www.who.int/bulletin/volumes/98/7/20-253591/en/
  5. https://www.news-medical.net/news/20200419/Scientists-unveil-novel-coronavirus-variants-in-India.aspx
  6. https://www.india.com/news/india/covid-19-variant-n440k-spreading-more-in-southern-states-reveals-study-warns-new-strains-to-keep-emerging-4438563/
  7. https://www.bbc.com/news/world-asia-india-55472333

Write your comments

%d bloggers like this: