জুন 24, 2024

শিশুদের অ্যান্টিবায়োটিক রেজিস্টেন্স কিভাবে প্রতিরোধ করা যায় ?

Reading Time: 4 minutes

ডঃ শুভময় ব্যানার্জী পিএইচডি, নিউক্র্যাড হেলথ ডেস্ক, ফেব্রুয়ারী ১২, ২০২২

অ্যান্টিবায়োটিক হচ্ছে অত্যন্ত গুরুত্বপূর্ণ একটি ওষুধ, যার প্রয়োগে মানুষ, উদ্ভিদ এবং পশুদের শরীরে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণ প্রতিরোধ করা যায়। 

অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স কাকে বলে?

অ্যান্টিবায়োটিক প্রয়োগ করা সত্ত্বেও ব্যাকটেরিয়া যদি সেই  অ্যান্টিবায়োটিকে প্রতিহত না হয় এবং সংখ্যায় বাড়তে থাকে তাকে ‘অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স’ বলে উল্লেখ করা হয়। 

শিশুদের ক্ষেত্রে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স দেখা দিলে তা চিন্তার বিষয় কেন?

সারা পৃথিবী জুড়েই অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স একটি সমস্যার বিষয়, বিশেষ করে শিশুদের স্বাস্থ্যের উপর তার প্রভাব খুব গুরুত্বপূর্ণ। কোন একটি বিশেষ অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্ট ব্যাকটেরিয়া স্ত্রেন তৈরি হলে, শিশুদের নিউমোনিয়া ও টিউবারকিউলোসিস রোগ সারানো কঠিন হয়ে পড়ে।  

GLUCOSE MONITOR

শিশুদের ক্ষেত্রে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্সের উদাহরনঃ

১) বর্তমানে শিশুদের মূত্রনালীর রোগ বিশেষজ্ঞরা দেখছেন যে শিশুদের মূত্রথলি ও মূত্রনালীতে ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের ঘটনা (ইউরিনারি ট্র্যাক ইনফেকশান) খুব বেড়ে গেছে। আশ্চর্যের ব্যাপার, অনেক ক্ষেত্রে দেখা গেছে অ্যান্টিবায়োটিক দিয়ে চিকিৎসা করার পরেও শিশুদের মূত্রনালীতে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্ট  ব্যাকটেরিয়া পাওয়া যাচ্ছে। 

২) পৌষ্টিক তন্ত্রে রোগ সৃষ্টিকারী ব্যাকটেরিয়া এসচেরিশিয়া কোলাই বহুদিন থেকেই উন্নত ও উন্নয়নশীল দেশগুলিতে শিশুদের শরীরে ডায়েরিয়া করে আসছে। ২০১০ থেকে ২০১২ সালের মধ্যে যে সমস্ত শিশু ডায়েরিয়া ও গ্যাস্ট্রো-এনট্রাইটিসের সমস্যা নিয়ে ব্রাজিলের কসমি অ্যান্ড ডামিও চিলড্রেন হসপিটালে ভর্তি হয়েছিল, তাদের নিয়ে একটি গবেষণা করা হয়। অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স  প্রোফাইল পরীক্ষা করার পরে নমুনা থেকে মোট একাত্তরটি অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্ট  ব্যাকটেরিয়া পাওয়া গিয়েছিল! এই ঘটনা প্রমান করে, সারা পৃথিবী জুড়ে কিভাবে শিশুদের শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স ব্যাকটেরিয়া সংক্রমণের প্রভাব বাড়ছে।   

অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্সের কারন? 

দুর্ভাগ্যবশত, এখনো পৃথিবীর বহু দেশেই চিকিৎসকের প্রেশক্রিপশান ছাড়াই অ্যান্টিবায়োটিক সহজেই ফার্মেসি থেকে কিনতে পাওয়া যায়। আবার কখনো চিকিৎসকরাও প্রয়োজনের অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক খেতে বলেন। শিশুদের ক্ষেত্রে এই সমস্ত কারনে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স শুরু হয়েছে। 

পৃথিবীর প্রায় সবদেশেই পোলট্রি, ডেয়ারি ফার্মে পশু-পাখিদের মধ্যে রোগ সংক্রমণ প্রতিরোধে ব্যাপক পরিমান অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যাবহার করা হয়। আমেরিকার ৮০% অ্যান্টিবায়োটিক গবাদি পশুর চিকিৎসা এবং তাদের থেকে উন্নতমানের খাদ্য উৎপাদনে ব্যবহৃত হয়। শিশুরা নিয়মিত ওই খাদ্য গ্রহন করলে তাদের শরীরে অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স তৈরি হয়ে যায়। 

শিশুদের অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স কিভাবে প্রতিরোধ করা যায়?

১) শিশু ও তার পরিবারের সবাইকে সাধারন স্বাস্থ্যবিধি মেনে চলতে হবে। চিকিৎসকের পরামর্শ মতো ওষুধ খাওয়া উচিত। শিশুকে অতিরিক্ত অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ানো উচিত নয়। প্রয়োজনে, চিকিৎসকের কথা মতো আবহাওয়া পরিবর্তনের সময় শিশুকে ফ্লু-শট দেওয়া যেতে পারে। 

২) অ্যান্টিবায়োটিক খাওয়ানোর একান্ত প্রয়োজন না হলে তা শিশুদের শরীরে প্রয়োগ করা উচিত নয়। দরকারে, চিকিৎসকের সাথে কথা বলে অ্যান্টিবায়োটিকের বদলে অন্য ওষুধ খাওয়ানো উচিত, যাতে শিশুর রোগ উপসর্গ কমে যায়।

৩) কারোর ব্যবহৃত অ্যান্টিবায়োটিকের অংশ শিশুকে খাওয়ানো উচিত নয়।

৪) শিশুর ভাইরাল জ্বরে, ভাইরাস অসুখ জনিত সর্দি-কাশিতে অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার করা উচিত নয়। কোন ভাইরাস জনিত অসুখে অ্যান্টিবায়োটিক কাজ করে না। 

৫) অ্যান্টিবায়োটিকের প্রয়োগ ও বিস্তারিত বিবরনের জন্যে চিকিৎসক ও ফার্মাসিস্টের সাথে যোগাযোগ করা উচিত। 

 এই প্রজন্মের শিশুদের ব্যাকটেরিয়া ঘটিত রোগ প্রশমনে, যথাযোগ্য অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যাবহার করা উচিত। স্বাস্থ্যমন্ত্রক, চিকিৎসক ও বিজ্ঞানীদের দেখা দরকার কোন ধরনের অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যাবহারে এবং কিভাবে শিশুদের মধ্যে সাময়িক ও দীর্ঘস্থায়ী অ্যান্টিবায়োটিক রেজিসস্টেন্স তৈরি হচ্ছে। শিশুদের মধ্যে বিভিন্ন জীবনদায়ী অ্যান্টিবায়োটিক ড্রাগের রেজিসস্টেন্স তৈরি হলে বহু রোগের চিকিৎসায় জটিলতা তৈরি হবে। প্রয়োজনে সেই অ্যান্টিবায়োটিকের ব্যবহার বন্ধ পর্যন্ত করতে হতে পারে। তাতে, ওষুধ গবেষণার সময়, পরিশ্রম ও অর্থের অপচয় হবে। তাই, ড্রাগ রেজিসস্টেন্স গবেষণার দিকে আরও লক্ষ্য দেওয়া উচিত। 

তথ্য সুত্রঃ 

  1. Medernach RL, Logan LK. The Growing Threat of Antibiotic Resistance in Children. Infect Dis Clin North Am. 2018;32(1):1-17. doi:10.1016/j.idc.2017.11.001
  2. Nicolini G, Sperotto F, Esposito S. Combating the rise of antibiotic resistance in children. Minerva Pediatr. 2014 Feb;66(1):31-9. PMID: 24608580.
  3. Edlin RS, Copp HL. Antibiotic resistance in pediatric urology. Ther Adv Urol. 2014;6(2):54-61. doi:10.1177/1756287213511508
  4. Lutter SA, Currie ML, Mitz LB, Greenbaum LA. Antibiotic resistance patterns in children hospitalized for urinary tract infections. Arch Pediatr Adolesc Med. 2005 Oct;159(10):924-8. doi: 10.1001/archpedi.159.10.924. PMID: 16203936.
  5. Abuhandan M, Güzel B, Oymak Y, Çiftçi H. Antibiotic sensitivity and resistance in children with urinary tract infection in Sanliurfa. Turk J Urol. 2013;39(2):106-110. doi:10.5152/tud.2013.022
  6. Koçak M, Büyükkaragöz B, Çelebi Tayfur A, Çaltik A, Köksoy AY, Çizmeci Z, Günbey S. Causative pathogens and antibiotic resistance in children hospitalized for urinary tract infection. Pediatr Int. 2016 Jun;58(6):467-71. doi: 10.1111/ped.12842. Epub 2016 Feb 3. PMID: 26513232.
  7. Bryce A, Hay AD, Lane IF, Thornton HV, Wootton M, Costelloe C. Global prevalence of antibiotic resistance in paediatric urinary tract infections caused by Escherichia coli and association with routine use of antibiotics in primary care: systematic review and meta-analysis. BMJ. 2016;352:i939. Published 2016 Mar 15. doi:10.1136/bmj.i939
  8. Singh AK, Das S, Singh S, et al. Prevalence of antibiotic resistance in commensal Escherichia coli among the children in rural hill communities of Northeast India. PLoS One. 2018;13(6):e0199179. Published 2018 Jun 18. doi:10.1371/journal.pone.0199179
  9. Abuhandan M, Güzel B, Oymak Y, Çiftçi H. Antibiotic sensitivity and resistance in children with urinary tract infection in Sanliurfa. Turk J Urol. 2013 Jun;39(2):106-10. doi: 10.5152/tud.2013.022. PMID: 26328090; PMCID: PMC4548590.
থ্যালাসেমিয়া -লক্ষন, কারণ ও তার চিকিৎসা
কেন আপনি নিউক্র্যাড হেলথ অনুসরণ করবেন?-ড: বিশ্বরূপ ঘোষ, পিএইচডি
নিও কোভ- এর সহজ ব্যাখ্যা :-ডঃ বিশ্বরূপ ঘোষ