কোভিড-১৯ সংক্রমণে মিঙ্কদের ভূমিকা

Reading Time: 4 minutes

শুভময় ব্যানার্জী, পিএইচডি, নিউক্র্যাড হেলথ এর প্রতিবেদন, ডিসেম্বর ২৬, ২০২০

মিঙ্ক একধরণের বেজি গোত্রিয় ছোট স্তন্যপায়ী প্রাণী। ইউরোপিয়ান এবং আমেরিকান দুই প্রজাতির মিঙ্ক তাদের দামী লোমের জন্যে বিখ্যাত। দেশে তথা আন্তর্জাতিক বাজারে, মিঙ্ক কোট ও অন্যান্য পোশাকের প্রচুর চাহিদা আছে। সারা পৃথিবী জুড়ে বিভিন্ন কোম্পানি এই কারণেই মিঙ্ক ফার্ম তৈরী করে তাদেরকে পালন করে। সম্প্রতি মিঙ্কদের মধ্যে কোভিড-১৯ সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়েছে, যা বিজ্ঞানীদের চিন্তার কারণ হয়ে উঠেছে। প্রশ্ন উঠছে মিঙ্ক ফার্মগুলির ক্ষেত্রে নভেল করোনাভাইরাস সংক্রমণ নিয়ন্ত্রণ করার উপযুক্ত পরিকাঠামো ব্যবস্থা আছে কি না। এছাড়াও উদ্বেগের বিষয় হলো করোনা আক্রান্ত মিঙ্ক প্রতিপালনকারীদের থেকে মিঙ্করা ভাইরাস আক্রান্ত হয়ে পড়ছে! দুটি ভিন্ন প্রজাতির মধ্যে নভেল করোনাভাইরাসের সংক্রমণ ঘটনার বেশ বিরল হওয়ায়, বিজ্ঞানীদের অনুমান ভাইরাসের মধ্যে পরিব্যপ্তি বা মিউটেশন ঘটছে যা পুনরায় হয়তো মানুষের মধ্যে সংক্রমিত হতে পারে।

উল্লেখ যোগ্য বিষয় হলো, মিঙ্করা SARS-CoV-2 দ্বারা সংক্রমিত হয় এবং তারা মানুষের মধ্যেও সংক্রমণ ছড়াতে পারে। এই ঘটনা নেদারল্যান্ডে প্রথম দেখা যায়। ডেনমার্ক, মিঙ্কফার্মের সবচেয়ে বড়ো উৎপাদনশীল দেশ হওয়ায়, কোভিড-১৯ এর প্রকোপ সবচেয়ে বেশী দেখা গেছে। বিশ্বের  অন্যান্য দেশের যেমন, সুইডেন, স্পেন, ইটালি ও মার্কিন যুক্তরাষ্ট্রের মিঙ্ক ফার্মগুলিতেও সংক্রমণ ছড়িয়ে পড়তে দেখা গেছে।

নিউক্র্যাড হেলথ নিয়ে আসছে নিউক্র্যাড হেলথ হাব – বাংলায় এক নতুন স্টার্ট আপ ,
এক বাঙালি বিজ্ঞানীর হাত ধরে।নিউক্র্যাড হেলথ হাব এর এন্ট্রেপ্রেনিউরশিপ প্রোগ্রাম এ কোনো পুঁজি না লাগিয়ে অংশ গ্রহণ করতে অথবা জানতে হোয়াট’স আপ করুন +917001105893

মিঙ্ক থেকে দ্রুত কোভিড-১৯ সংক্রমণ হওয়ায়, পরিস্থিতির গুরুত্ব বিচার করে, বহু দেশ সংক্রমিত মিঙ্কদের শনাক্ত করে ফার্মে তাদেরকে হত্যা করার সিদ্ধান্ত নিয়েছে। নেদারল্যান্ড প্রায় দশ হাজার মিঙ্ককে হত্যা করার পরিকল্পনা নিয়েছে। ইতিমধ্যেই, স্পেনের আরগন রাজ্যের কসাইখানায়  সাধারণের চেয়ে প্রায় দশগুন বেশী মিঙ্ক হত্যা করেছে। মিঙ্ক হত্যায় পিছিয়ে নেই ডেনমার্ক, তারা সতেরো লক্ষ মিঙ্ককে নির্বাচিত করে হত্যা করার সিধান্ত নিয়েছিল! অবশ্য, পরে ড্যানিশ সরকার তাদের সিদ্ধান্তে কিছুটা রদবদল ঘটায় ও স্থির করে, একসাথে এতো মিঙ্ক কসাইখানায় হত্যা না করে, প্রয়োজনমতো কিছু মিঙ্ক শনাক্ত করে তাদের তুলনামূলক ভাবে যন্ত্রনাহীন মৃত্যুর (যাকে “ইউথেনাইজেশান” বলে) ব্যবস্থা করা হবে। দেশের বিভিন্ন বিরোধীপক্ষ থেকে এইভাবে প্রচুর মিঙ্ক হত্যার সমালোচনা করা হয়। সমালোচকরা মিঙ্ক হত্যার আশু প্রয়োজনীয়তা, উপযুক্ত আইন, কসাইখানাগুলির উপর মিঙ্ক হত্যার অর্থনৈতিক প্রভাব ইত্যাদি বিষয় নিয়ে প্রশ্ন তোলেন।

Click & Subscribe YouTube Channel

মিঙ্কদের মধ্যে কোভিড১৯ সংক্রমণের গুরুত্ব:

কোভিড-১৯ প্যান্ডেমিকের সময়েই প্রায় পঞ্চাশের উপর বিভিন্ন প্রজাতির প্রাণীর মধ্যে SARS-CoV-2 এর অস্তিত্ব দেখা গিয়েছিলো। কিন্তু সেই সময়ে মহামারী বিশেষজ্ঞরা ততটা বিচলিত হন নি, যতটা মিঙ্ক সংক্রমণের সময়ে হয়েছেন। এর করণ হলো, গবেষণা করে দেখা গেছে, মিঙ্ক নভেল করোনা ভাইরাস সংক্রমণ চক্রের (Infection Cycle) সর্বশেষ পোষক (Dead-end Host) নয়, অর্থাৎ মিঙ্ক থেকে পুনরায় মানুষের মধ্যে এই সংক্রমণ ছড়ানোর সম্ভাবনা খুব বেশী। পরজীবীবিদ্যায় এই পরিস্থিতিকে “জুনোসিস” (Zoonosis) বলা হয়। এই প্রসঙ্গে স্ট্যাটেন সেরাম ইনস্টিটিউটের বৈজ্ঞানিক ও ভাইরাসবিদ ডঃ জেনিক ফোনাগার মনে করেন, মিঙ্কের থেকে কোভিড-১৯ সংক্রমন অনিয়ন্ত্রিত ভাবে ছড়িয়ে পড়লে নভেল করোনাভাইরাস মিউটেশনের মাধ্যমে বিবর্তিত হয়ে আরো ভয়াবহ পরিস্থিতির সৃষ্টি করবে।

মিঙ্কের মধ্যে নভেল করোনা ভাইরাসের মিউটেশন ও তার বৈশিষ্ট: 

জিনোমের প্রতিলিপি গঠনের সময়, নিউক্লিওটাইড সিকোয়েন্সে আকস্মিক, স্বতঃস্ফূর্ত এবং পর্যায়ক্রমিক ভাবে পরিবর্তন দেখা দিলে তাকে মিউটেশন বলে। সাধারণভাবে, SARS-CoV-2 এর মিউটেশনের হার খুবই কম। কিন্তু আশঙ্কার কথা হলো, মিঙ্কের মধ্যে যে  মিউটেশন যুক্ত ভাইরাস পাওয়া গেছে, তাকে সাধারণ ভাবে শনাক্ত ‘ওয়াইল্ড টাইপ’ নভেল করোনাভাইরাসের বিরুদ্ধে তৈরী হওয়া অ্যান্টিবডি দিয়ে প্রতিহত করা যায় না। ফলে বিজ্ঞানীদের অনুমান, এই মিউটেশন যুক্ত ভাইরাস প্যান্ডেমিকের সময়ে মানুষকে আক্রমণ করে তার ইমিউন সিস্টেমের উপর খারাপ প্রভাব ফেলতে পারে।

ডেনমার্কের বিজ্ঞানীরা প্রায় চল্লিশটি মিঙ্কফার্ম থেকে ভাইরাসের নমুনা সংগ্রহ করে, ১৭০টি করোনাভাইরাসের বিশেষ ‘ভ্যারিয়েন্ট’ শনাক্ত করেছেন। এছাড়াও ৩০০ জন মানুষ মিঙ্কের থেকে এই মিউটেশন যুক্ত ভ্যারিয়েন্ট দ্বারা আক্রান্ত হয়েছেন। গবেষণায় দেখা যাচ্ছে, নভেল করোনাভাইরাসের স্পাইক প্রোটিন (যে প্রোটিনের সাহায্যে ভাইরাস পোষক কোষে প্রবেশ করে) তৈরীর জন্যে দায়ী জিনটিতে মিউটেশনগুলি অবস্থিত। চিন্তার ব্যাপারটা এখানেই, কারণ ভাইরাসের স্পাইক প্রোটিনে মিউটেশন  মানুষের ইমিউন সিস্টেমকে অনিয়ন্ত্রিত করে রোগের পরিস্থিতি জটিল করে তুলতে পারে এবং যথোপযুক্ত ভ্যাকসিন তৈরীতেও বাধার সৃষ্টি করতে পারে। এই মিউটেশনগুলির একটি স্বতন্ত্র কম্বিনেশন দেখা গেছে, একে বিজ্ঞানীরা “ক্লাস্টার-5” নাম দিয়েছেন। কিন্তু, এই ক্লাস্টার-5 সহজে কোভিড-১৯ রোগমুক্ত রোগীর দেহে শনাক্ত করা যায় না। অর্থাৎ, এই বিশেষ ভ্যারিয়েন্ট ভাইরাসটিকে অ্যান্টিবডি বা ভ্যাকসিন দিয়ে প্রতিহত করা যাচ্ছে না।

তবে, অনেক বিজ্ঞানীরা বিভিন্ন তথ্য খতিয়ে দেখে কিছুটা ভিন্ন মত পোষণ করেন। যেমন অক্সফোর্ড বিশ্ববিদ্যালয়ের ভাউরাসবিদ ডঃ আস্ট্রিড আইভারসেন মনে করেন মিঙ্ক থেকে প্রাপ্ত ভাইরাস মিউটেশান মানুষের পক্ষে ততটা ঝুঁকিপূর্ণ নয়, প্রথমত এটি দ্রুত ছড়ায় না আর দ্বিতীয়ত, এই ভ্যারিয়েন্ট সংক্রমণে মৃত্যুর ঝুঁকিও অনেক কম।

মিঙ্ক জনিত করোনাভাইরাস সংক্রমণের বিষয়টি সম্পূর্ণ বুঝতে এবং কোন স্থির সিদ্ধান্তে আসতে এখনো অনেক গবেষণার দরকার সেই সব প্রাণীদের উপর যাদের থেকে আমরা খাদ্য, পশম ও অন্যান্য প্রাণীজ দ্রব্য সংগ্রহ করি। বিশেষ করে সারা পৃথিবীতে মিঙ্কফার্ম ইন্ডাস্ট্রিগুলিকে চিহ্নিত করে তাদের উপর বাধ্যতামূলক পর্যবেক্ষণ ব্যবস্থা শুরু করা প্রয়োজন, যাতে এই মারণ ভাইরাস কোনভাবেই ছড়িয়ে পড়ে নতুন কোন প্যান্ডেমিক সৃষ্টি করতে না পারে।

তথ্যসূত্রঃ

1.         Oreshkova N, Molenaar RJ, Vreman S, Harders F, Oude Munnink BB, Hakze-van der Honing RW, Gerhards N, Tolsma P, Bouwstra R, Sikkema RS, Tacken MG, de Rooij MM, Weesendorp E, Engelsma MY, Bruschke CJ, Smit LA, Koopmans M, van der Poel WH, Stegeman A. SARS-CoV-2 infection in farmed minks, the Netherlands, April and May 2020. Euro Surveill. 2020 Jun;25(23):2001005. doi: 10.2807/1560-7917.ES.2020.25.23.2001005. PMID: 32553059; PMCID: PMC7403642.

2.         Oude Munnink BB, Sikkema RS, Nieuwenhuijse DF, Molenaar RJ, Munger E, Molenkamp R, van der Spek A, Tolsma P, Rietveld A, Brouwer M, Bouwmeester-Vincken N, Harders F, Hakze-van der Honing R, Wegdam-Blans MCA, Bouwstra RJ, GeurtsvanKessel C, van der Eijk AA, Velkers FC, Smit LAM, Stegeman A, van der Poel WHM, Koopmans MPG. Transmission of SARS-CoV-2 on mink farms between humans and mink and back to humans. Science. 2020 Nov 10:eabe5901. doi: 10.1126/science.abe5901. Epub ahead of print. PMID: 33172935.

3.         Singla R, Mishra A, Joshi R, et al. Human animal interface of SARS-CoV-2 (COVID-19) transmission: a critical appraisal of scientific evidence. Vet Res Commun. 2020;44(3-4):119-130. doi:10.1007/s11259-020-09781-0

4.         https://www.who.int/csr/don/06-november-2020-mink-associated-sars-cov2-denmark/en/

Write your comments

%d bloggers like this: