কোভিড-১৯ এবং ওবেসিটি: গবেষণা তথ্য ও সচেতনতা

Reading Time: 4 minutes

শুভময় ব্যানার্জী, পিএইচডি, নিউক্র্যাড হেলথ এর প্রতিবেদন, সেপ্টেম্বর ২১, ২০২০

নভেল করোনা ভাইরাস প্যান্ডেমিকে এখনো পর্যন্ত প্রাণ হারিয়েছেন প্রায় নয় লক্ষেরও বেশী মানুষ। গবেষণায় দেখা গেছে এদের মধ্যে যাদের ওবেসিটি বা স্থূলত্বের সমস্যা আছে, তাঁদের মৃত্যুর হার অপেক্ষাকৃত বেশী। পরিসংখ্যান অনুযায়ী, কোভিড-১৯ আক্রান্ত সাধারণ মানুষের চেয়ে স্থূলকায় মানুষের ৭৪% ঝুঁকি থাকছে ইন্টেনসিভ কেয়ার ইউনিট (ICU) এ ভর্তি হবার এবং তাঁদের মধ্যে ৪৮% মানুষের শারীরিক পরিস্থিতি সঙ্কটজনক হয়ে ওঠে ও তাঁদের মৃত্যু হয়। চিকিৎসক ও বৈজ্ঞানিকরা একমত যে ওবেসিটি কোভিড-১৯ আক্রান্তের মৃত্যুর একটি প্রধান কারণ। এই প্রসঙ্গে বিস্তারিত আলোচনার আগে আমরা জেনে নেবো ওবেসিটি সম্পর্কে।

ওবেসিটি ও বডি-মাস ইনডেক্স (BMI): মানুষের শরীরে অস্বাভাবিক হারে এবং দীর্ঘস্থায়ী ভাবে মেদ জমতে শুরু করলে সেই লক্ষণকে স্থূলত্ব বা ওবেসিটি বলে। চিকিৎসা বিজ্ঞানে নিরিখে ওবেসিটি একধরনের রোগ। নানা কারনে ওবেসিটি হতে পারে, যেমন- ব্যালেন্স ডায়েটের অভাবে, স্থবির (Sedentary) জীবনযাত্রার প্রভাবে, অপরিমিত মদ্যপানে, মানসিক চাপে ও অবসাদে, জেনেটিক কারনে, হরমোনের সমস্যায় এবং বিভিন্ন জটিল বিপাকজনিত রোগের কারনে। ওবেসিটি দেখা দিলে মানুষের দেহের আকার ও ওজনের অস্বাভাবিক বৃদ্ধি হয়। দীর্ঘস্থায়ী ওবেসিটির প্রভাবে দেখা দেয় মারাত্মক সব অসুখ, মানুষের স্বাভাবিক চলন-গমন ব্যাহত হয়, কর্মক্ষমতা কমতে থাকে, দেখা দিতে পারে মানসিক ও স্নায়বিক নানা সমস্যা। কিন্তু, কিভাবে জানা যাবে ওবেসিটির কথা? কিভাবেই বা পরিমাপ করা যাবে ওবেসিটি? এর বৈজ্ঞানিক উপায় আছে। মানুষের দৈহিক ওজনকে (কেজিতে) তার উচ্চতার (মিটারে) বর্গ দিয়ে ভাগ করলে বডি-মাস ইনডেক্স বা বিএমআই পাওয়া যায়। অর্থাৎ, BMI= kg/m

হিসেব অনুযায়ী বিএমআই ২৫.০ এর বেশী হলে সেই মানুষটির ওবেসিটি আছে। আর সুস্থ থাকলে বিএমআই ১৮.৫ থেকে ২৪.৯ এর মধ্যে থাকা উচিত।

নিউক্র্যাড হেলথ নিয়ে আসছে নিউক্র্যাড হেলথ হাব – বাংলায় এক নতুন স্টার্ট আপ ,
এক বাঙালি বিজ্ঞানীর হাত ধরে।

ওবেসিটির সাথে বিভিন্ন রোগের সম্পর্ক: আপাতদৃষ্টিতে নিরীহ মনে হলেও ওবেসিটি একটি ভয়াবহ রোগ। ওবেসিটি অসংখ্য রোগের সাথে সরাসরি সম্পর্কযুক্ত। দীর্ঘদিন ওবেসিটি থাকলে দেখা দিতে পারে উচ্চ রক্তচাপ, টাইপ-২ ডায়াবেটিস, ক্যান্সার, ফুসফুসের সমস্যা, অস্টিওআর্থ্রাইটিস, করোনারি থ্রম্বোসিস, স্ট্রোক, নিউরো-ইনফ্লামেটরি রোগ, মানসিক অবসাদ এবং আরো অনেক রোগ। সারা পৃথিবীতে ওবেসিটির সাথে অন্যান্য রোগের যোগাযোগ নিয়ে চলেছে নানা গবেষণা। উঠে আসছে নানা চমকপ্রদ তথ্য। দীর্ঘস্থায়ী শারীরিক স্থূলতার কারণে ডায়াফ্রামের নিচের পেশিতে মেদ জমে ওঠে এবং ডায়াফ্রামটি কিছুটা উপরের দিকে উঠে আসে। এতে ফুসফুসের নিচের দিকে চাপ পড়ে, সেই অংশে রক্ত সংবহন কমে যায় ফলে দেখা দেয় শ্বাসকষ্ট ও ফুসফুসের নানা অসুখ। ওবেসিটির কারণে শরীরে জমা হওয়া অ্যাডিপোস কোষ (ফ্যাট যুক্ত কোষ) থেকে বিভিন্ন সাইটোকাইন বার হয়ে রক্তে প্রো-ইনফ্লেমাটরি সাইটোকাইনগুলির মাত্রা বাড়িয়ে দেয় এবং প্রদাহ জনিত অসুখের সৃষ্টি করে। এছাড়া, ওবেসিটিতে রক্ত সহজেই তঞ্চিত হয়ে সূক্ষ্য রক্তপিন্ড (Blood clots) তৈরী করে ফলে অধিকাংশ ক্ষেত্রেই তা স্ট্রোকের কারণ হয়ে ওঠে। বৈজ্ঞানিক গবেষণায় দেখা গেছে ওবেসিটিতে শরীরের অ্যাডিপোস কলাগুলি প্রায়শই ইমিউন কোষকলাকে (টনসিল, লিম্ফনোড, পেয়ার’স প্যাচ ইত্যাদি) প্রতিস্থাপিত করে অর্থাৎ তার স্থান অধিকার করতে চায়। এই কারণে শরীরের ইমিউনিটি কমে যায় ও জীবাণু সংক্রমণ শুরু হয়। 

ওবেসিটি ও কোভিড-১৯: কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর অবস্থা সঙ্কটজনক হয়ে ওঠে প্রধানতঃ তিনটি কারনে,

১) নভেল করোনা ভাইরাস দ্বারা ফুসফুসের নিচের অংশে প্রবল সংক্রমণ ও নিউমোনিয়া।

২) শরীরে “সাইটোকাইন স্টর্ম” সৃষ্টি যা বিভিন্ন গুরুত্বপূর্ণ অঙ্গকে অচল করে দেয়।

৩) সংক্রমণের প্রভাবে রক্তবাহে রক্ত জমাট বাঁধে এবং স্ট্রোক সৃষ্টি করে।

উপরের আলোচনা থেকে আমরা জেনেছি যে ওবেসিটির প্রভাবে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর শরীরে আগে থেকেই ফুসফুসের নিচের লোবদুটি দুর্বল অবস্থায় থাকে, ফলে SARS-CoV-2 সংক্রমণ দ্রুত ছড়িয়ে পড়ে এবং মারাত্মক নিউমোনিয়ার সৃষ্টি হয়। এছাড়াও অ্যাডিপোস কোষ থেকে ক্রমাগত নির্গত সাইটোকাইনগুলি যেমন, TNF-a, IL-6, TGF-b ইত্যাদি রক্তবাহ পথে শরীরে ছড়িয়ে পড়ে। কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর ক্ষেত্রে এই প্রো-ইনফ্লামেটরি সাইটোকাইনগুলি ভীষণ ভাবে বেড়ে গিয়ে “সাইটোকাইন স্টর্ম” তৈরি করে বিভিন্ন অঙ্গের প্রয়োজনীয় কাজগুলি বন্ধ করে দেয় ফলে, রোগী “মাল্টিঅরগ্যান ফেলিওর” এর দিকে এগিয়ে যান। বিজ্ঞানীরা দেখেছেন, যাদের ওবেসিটি আছে, তাঁদের SARS-CoV-2 সংক্রমণে শরীরে স্বাভাবিক ভাবে এই ভাইরাসের বিরুদ্ধে টি-লিম্ফোসাইট ইমিউন রেস্পন্স সহজে তৈরি হয় না। এছাড়া, ওবেসিটি থাকলে শরীরের রক্তবাহে রক্ত জমাট বাঁধার প্রবনতা থাকে আর দেখা গেছে কোভিড-১৯ আক্রান্ত রোগীর শরীরের আভ্যন্তরীণ অঙ্গে সংক্রমণের প্রভাবে রক্ত জমাট বেঁধে যায়। সেই ক্ষেত্রে, ওবেসিটিযুক্ত মানুষের দেহে SARS-CoV-2 সংক্রমণের ফলে রক্ত জমাটের ঝুঁকি অনেকটা বেড়ে যায়।  

বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন neucradhealth@gmail.com

ওবেসিটি থেকে মুক্তির উপায়: সাধারন কিছু স্বাস্থ্যবিধি নিয়মিত মেনে চললে ওবেসিটি থেকে আমরা দূরে থাকতে পারি, সুস্থ জীবনযাপন করতে পারি। সেগুলি হোল-

১) ক্রমাগত ডায়েট পরিবর্তনে ওবেসিটি আসে। প্রতিদিন নির্দিষ্ট সময়ে, নির্দিষ্ট সুষম আহার গ্রহনে ওবেসিটি কমে যায়। চিকিৎসকের সাথে পরামর্শ করে নির্দিষ্ট ক্যালোরির খাবার খেতে হবে। আহারে কম কার্বোহাইড্রেট যুক্ত খাবার নিয়ে বেশী পরিমানে শাক-সব্জি ও প্রোটিন ডায়েট করা উচিত। চিনিযুক্ত ও ফ্যাট জাতীয় খাবার যতটা সম্ভব কম খাওয়া উচিত। 

২)  স্থবির জীবনযাত্রা থেকে বার হয়ে আসতে হবে। প্রতিনিয়ত নিয়ম করে কিছু সময় হাঁটা ও ব্যায়াম করা আবশ্যিক। 

৩) দীর্ঘসময় ওবেসিটি থাকলে সহজে তা দূর করা যায় না। মানসিক প্রস্তুতির সাথে জীবনযাত্রার পরিবর্তন করতে হয়। সে ক্ষেত্রে, কাউসেলিং করান যেতে পারে। 

৪) দীর্ঘস্থায়ী ওবেসিটির ফলে যদি শারীরবৃত্তিও কাজে অসুবিধা দেখা দেয়, সেই চূড়ান্ত অবস্থায় চিকিৎসকের পরামর্শে নির্দিষ্ট মেডিসিন এবং সার্জারির ব্যাবস্থা করতে হতে পারে। 

ওবেসিটি শুধু শারীরিক নয় এটি সামাজিক ব্যাধিও বটে। বিজ্ঞানের সুবিধা আমাদের দিন দিন পরিশ্রমবিমুখ করে তুলেছে। আর্থ-সামাজিক পরিস্থিতি ও মানসিক স্বাস্থ্যের অবনতিও ওবেসিটির প্রধান কারন। তাই কোভিড-১৯ সংক্রমণে ওবেসিটির প্রতিকূল প্রভাব নিয়ে বিজ্ঞানীরা চিন্তিত।  

নিউক্র্যাড হেলথ হাব এর এন্ট্রেপ্রেনিউরশিপ প্রোগ্রাম এ কোনো পুঁজি না লাগিয়ে অংশ গ্রহণ করতে অথবা জানতে হোয়াট’স আপ করুন +19175663401
বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন neucradhealth@gmail.com

তথ্যসূত্রঃ

  1. Caussy C, Wallet F, Laville M, Disse E. Obesity is Associated with Severe Forms of COVID-19. Obesity (Silver Spring). 2020 Jul;28(7):1175. doi: 10.1002/oby.22842. Epub 2020 May 21. PMID: 32314861; PMCID: PMC7264509.
  2. Dietz W, Santos-Burgoa C. Obesity and its Implications for COVID-19 Mortality. Obesity (Silver Spring). 2020 Jun;28(6):1005. doi: 10.1002/oby.22818. Epub 2020 Apr 18. PMID: 32237206.
  3. Caci G, Albini A, Malerba M, Noonan DM, Pochetti P, Polosa R. COVID-19 and Obesity: Dangerous Liaisons. J Clin Med. 2020;9(8):2511. Published 2020 Aug 4. doi:10.3390/jcm9082511
  4. Petrakis D, Margină D, Tsarouhas K, Tekos F, Stan M, Nikitovic D, Kouretas D, Spandidos DA, Tsatsakis A. Obesity ‑ a risk factor for increased COVID‑19 prevalence, severity and lethality (Review). Mol Med Rep. 2020 Jul;22(1):9-19. doi: 10.3892/mmr.2020.11127. Epub 2020 May 5. PMID: 32377709; PMCID: PMC7248467.
  5. Dugail I, Amri EZ, Vitale N. High prevalence for obesity in severe COVID-19: Possible links and perspectives towards patient stratification [published online ahead of print, 2020 Jul 8]. Biochimie. 2020;S0300-9084(20)30155-3. doi:10.1016/j.biochi.2020.07.001
  6. Yadav R, Aggarwal S, Singh A. SARS-CoV-2-host dynamics: Increased risk of adverse outcomes of COVID-19 in obesity. Diabetes Metab Syndr. 2020;14(5):1355-1360. doi:10.1016/j.dsx.2020.07.030
  7. Lockhart SM, O’Rahilly S. When Two Pandemics Meet: Why Is Obesity Associated with Increased COVID-19 Mortality? [published online ahead of print, 2020 Jun 29]. Med (N Y). 2020;10.1016/j.medj.2020.06.005. doi:10.1016/j.medj.2020.06.005

Write your comments

%d bloggers like this: