কমন কোল্ড করোনা ভাইরাস সংক্রমনের পর মানবশরীর প্রতিরোধ করতে পারে কোভিড-১৯: গবেষণার নতুন তথ্য

Reading Time: 3 minutes

ডঃ শুভময় ব্যানার্জী, পিএইচডি, নিউক্র্যাড হেলথ ডেস্কের প্রতিবেদন। আগস্ট ১০, ২০২০

নভেল করোনা ভাইরাস গবেষণায় নতুন মোড়! বিজ্ঞানীদের দাবী, কোন মানুষ কমন কোল্ড করোনা ভাইরাসের দ্বারা আক্রান্ত হলে তার শরীরে কিছু “মেমোরি টি-লিম্ফোসাইট” তৈরী হয় যা ভবিষ্যতে নভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণকে প্রতিরোধ করে। বস্তুতঃ কমন কোল্ড করোনা ভাইরাস সংক্রমণ খুবই সাধারণ ঘটনা। এই ভাইরাসের সংক্রমণে সামান্য সর্দি-কাশি হয় মাত্র। কিছুদিনের মধ্যেই রোগী সুস্থ হয়ে ওঠে। কমন কোল্ড করোনা ভাইরাসকে বৈজ্ঞানিক দৃষ্টিভঙ্গিতে বলা যায় নভেল করোনা ভাইরাসের এক “জ্ঞাতিভাই”।এই দুই ভাইরাস একই পরিবারের অন্তর্ভুক্ত (করোনাভিরিডি), যাদের মধ্যে কাজের বৈসাদৃশ থাকলেও আকৃতিগত মিল অনেক। ঠিক এই বিষয়টিই বৈজ্ঞানিক মহলে চরম কৌতূহলের সৃষ্টি করে। আমেরিকার লা হোলা ইনস্টিটিউট অফ ইমিউনোলজির (LJI) দুই অধ্যাপক ডঃ ড্যানিয়েলা উইস্কফ এবং ডঃ অ্যালেসান্দ্রো সেটে সম্প্রতি বিখ্যাত ‘সায়েন্স’ পত্রিকার নিউজ রিলিজে জানিয়েছেন তাঁদের গবেষণা প্রমান করেছে কমন কোল্ড করোনা ভাইরাস সংক্রমণ থেকে সেরে উঠলে মানুষের শরীরে তৈরী হয়ে যায় “মেমরি হেলপার টি-লিম্ফোসাইট” যা পরবর্তীকালে SARS-CoV-2 ভাইরাসের বিরুদ্ধে প্রতিরোধ গড়ে তোলে।

নিউক্র্যাড হেলথ নিয়ে আসছে নিউক্র্যাড হেলথ হাব – বাংলায় এক নতুন স্টার্ট আপ এক বাঙালি বিজ্ঞানীর হাত ধরে।

বিশ্বব্যাপী ক্রমবর্ধমান নভেল করোনা ভাইরাস প্যান্ডেমিকের সময়ে একটি সাধারণ প্রশ্ন বিজ্ঞানীদের মনে জেগেছিল, তা হচ্ছে- একই নভেল করোনা ভাইরাসের সংক্রমণে কিছু মানুষের মধ্যে অতি সামান্য কোভিড-১৯ এর উপসর্গ দেখা দেয়, আবার কিছু মানুষ গুরুতর অসুস্থ হয়ে পড়েন এমনকি তাঁদের প্রাণের আশঙ্কা দেখা দেয়। এই দুই পরিস্থিতির বৈজ্ঞানিক ব্যাখ্যা কি? ডঃ অ্যালেসান্দ্রো সেটে এবং LJI অধ্যাপক ডঃ শান ক্রোটি এই বিষয়ে বিস্তারিত গবেষণার কাজ “সেল” পত্রিকায় প্রকাশ করেছেন। তাঁদের গবেষণার বিস্ময়কর তথ্যটি হলো, প্রায় ৪০-৬০% এমন মানুষ আছেন যাদের কোনোদিন কোভিড-১৯ হয়নি, তাদের শরীরেও এমন মেমোরি টি-লিম্ফোসাইট পাওয়া যায় যারা SARS-CoV-2 ভাইরাসের সাথে লড়াই করতে সক্ষম! এই ধরণের বহু মানুষের পরিসংখ্যান ইতিমধ্যেই আমেরিকা, নেদারল্যান্ড, জার্মানি, ব্রিটেন ও সিঙ্গাপুর থেকে পাওয়া গেছে। বিজ্ঞানীদের পর্যবেক্ষণ, এই সব মানুষের ইমিউন সিস্টেম SARS-CoV-2 ভাইরাসকে কখনো না দেখলেও, তার সম্পূর্ণ আণবিক গঠনের (Molecular Structure) কিছু কিছু জায়গা ঠিকই চিনতে পারছে ও তাকে আক্রমণ করে প্রতিহত করছে। 

ডঃ সেটে তাঁর গবেষকদের নিয়ে ২০১৫ থেকে ২০১৮ সালের মধ্যে কমন কোল্ড ভাইরাস সংক্রমিত কিন্তু কিছুদিন পরেই যারা সম্পূর্ণ সুস্থ হয়ে উঠেছেন, এমন মানুষদের রক্তের নমুনা সংগ্রহ করেন। গবেষণাগারে এই নমুনা থেকে টি-লিম্ফোসাইট আলাদা করা হয় এবং পরীক্ষা করে দেখা যায় করোনা ভাইরাসের মধ্যে অবস্থিত নির্দিষ্ট ১৪২টি ‘বিশেষ স্থানকে’ এই টি-লিম্ফোসাইটগুলি চিনতে পারে। আশ্চর্যের বিষয়, এদের মধ্যে প্রায় অর্ধেক স্থান করোনা ভাইরাসের স্পাইক প্রোটিনে (S-Protein) অবস্থিত। গবেষকরা আরো প্রমান করেছেন, এই ‘রি-অ্যাক্টিভ’ টি-লিম্ফোসাইটগুলি আরো চার প্রকার করোনা ভাইরাসকে চিনতে পারে, যাদের ‘বিশেষ স্থানের’ জেনেটিক সিকোয়েন্স হুবহু নভেল করোনা ভাইরাসের মতো। বিজ্ঞানীদের অনুমান, কমন কোল্ড করোনা ভাইরাসের সংক্রমণের ফলে শরীরের ইমিউন সিস্টেম বিশেষ “শিক্ষা” পায় নির্দিষ্ট টি-লিম্ফোসাইট তৈরী করার যারা প্রয়োজনে ভবিষ্যতে কোভিড-১৯ প্রতিরোধ করার সামর্থ রাখে। ভ্যাকসিন গবেষণার ক্ষেত্রে এই তথ্য খুব গুরুত্বপূর্ণ কারণ, শুধুমাত্র SARS-CoV-2 স্পাইক প্রোটিনের বিরুদ্ধে ভ্যাকসিন তৈরী না করে যদি তার সাথে ভাইরাসের অন্যান্য ‘এপিটোপ’ গুলিকেও পর্যালোচনা করা হয় তবে নিশ্চিতভাবে কোভিড-১৯ ভ্যাকসিন গবেষণায় আশাতীত সাফল্য আসবে। 

তথ্যসূত্রঃ

  1. Mateus J, Grifoni A, Tarke A, et al. Selective and cross-reactive SARS-CoV-2 T cell epitopes in unexposed humans [published online ahead of print, 2020 Aug 4]. Science. 2020;eabd3871. doi:10.1126/science.abd3871
  2.  Grifoni A, Weiskopf D, Ramirez SI, et al. Targets of T Cell Responses to SARS-CoV-2 Coronavirus in Humans with COVID-19 Disease and Unexposed Individuals. Cell. 2020;181(7):1489-1501.e15. doi:10.1016/j.cell.2020.05.015
  3. Le Bert N, Tan AT, Kunasegaran K, et al. SARS-CoV-2-specific T cell immunity in cases of COVID-19 and SARS, and uninfected controls [published online ahead of print, 2020 Jul 15]. Nature. 2020;10.1038/s41586-020-2550-z. doi:10.1038/s41586-020-2550-z
  4. Peng Y, Mentzer AJ, Liu G, et al. Broad and strong memory CD4 + and CD8 + T cells induced by SARS-CoV-2 in UK convalescent COVID-19 patients. Preprint. bioRxiv. 2020;2020.06.05.134551. Published 2020 Jun 8. doi:10.1101/2020.06.05.134551
  5. Braun J, Loyal L, Frentsch M, et al. SARS-CoV-2-reactive T cells in healthy donors and patients with COVID-19 [published online ahead of print, 2020 Jul 29]. Nature. 2020;10.1038/s41586-020-2598-9. doi:10.1038/s41586-020-2598-9
  6. Cascella M, Rajnik M, Cuomo A, Dulebohn SC, Di Napoli R. Features, Evaluation and Treatment Coronavirus (COVID-19). In: StatPearls. Treasure Island (FL): StatPearls Publishing; July 4, 2020.
  7. https://www.eurekalert.org/pub_releases/2020-08/ljif-etc080320.php
বিজ্ঞাপনের জন্য যোগাযোগ করুন neucradhealth@gmail.com
Panel discussion with Doctors (ডাক্তার ও উপদেশ )

Write your comments

%d bloggers like this: